ভ্যাকসিন নিয়ে ভাইরাসের সংক্রমণ রোখা যাবে, কিন্তু প্রকৃতির রোষ থেকে বাঁচার কোনও উপায় নেই: Bill Gates

there-is-no-way-to-escape-the-wrath-of-nature-bill-gates
Image Source: Google

২০৬০ সালে ভয়ঙ্কর বিপর্যয় আনবে জলবায়ু বদল

আউটলাইন বাংলা ডেস্কঃ ২০৬০ সালে জলবায়ু পরিবর্তন আরও বেশি বিপর্যয় নিয়ে আসবে। বড় বিপদের মুখোমুখি হতে হবে মানবসভ্যতাকে, এমনটাই দাবি করেছেন বিল গেটস। পরিবেশ দূষণ এমন স্তরে গিয়ে পৌঁছেছে যার প্রভাব অতি খারাপের পর্যায়ে চলে গেছে, বড় বড় রাষ্ট্রনেতারা এ কথা এরিয়ে যাচ্ছেন, এই নিয়ে কোন কথাই বলছেন না তারা।

বিল গেটস বলেছেন “যেভাবে বাতাসে কার্বন-ডাই-অক্সাইডের পরিমাণ বাড়ছে, বিষাক্ত গ্যাসে ছেয়ে যাচ্ছে পরিবেশ তার থেকেই অনুমান করা যায় ২১০০ সালের মধ্যে জলবায়ুর পরিবর্তন পাঁচ গুণ বেশি বিপর্যয় নিয়ে আসবে পৃথিবীতে। বিশ্ব উষ্ণায়ণে পৃথিবীর তাপমাত্রা বাড়ছে। আন্টার্কটিকায় বরফ গলতে শুরু করেছে।পশ্চিম আন্টার্কটিকায় উপকূল বরাবর দুই বিশাল হিমবাহে ভাঙন ধরেছে বলে সতর্ক করেছেন বিজ্ঞানীরা। ইতিমধ্যেই হিমবাহ ভেঙে সমুদ্রের জলস্তর বেড়েছে। বিশাল দুই হিমবাহ পুরোপুরি গলতে শুরু করলে সমুদ্রের জলস্তর ৫ শতাংশ অবধি বাড়তে পারে বলেও মনে করছেন বিজ্ঞানীরা।“

আগামী ৪০ বছরে পৃথিবীর তাপমাত্রা চড়চড় করে বাড়বে। পাল্লা দিয়ে বাড়বে মৃত্যুহার। প্রতি এক লক্ষ জনসংখ্যায় অন্তত ১৪ জনের মৃত্যু হবে। শতাব্দীর শেষে এই সংখ্যা আরও বাড়বে। প্রতি এক লক্ষে ৭৩ জনের মৃত্যু হবে। করোনায় মৃত্যুহারের থেকে যা অনেক বেশি হবে বলেই দাবি মাইক্রোসফট কর্তার।

গেটস বলছেন, বিশ্ব উষ্ণায়ন ছিল শুধুই বিপদের আগাম পূর্বাভাস। এবার সরাসরি তার ফল ভুগবে মানবজাতি। অনেক মানুষ আছেন যারা ভবিষ্যতের কথা ভাবেন না, বর্তমান নিয়ে থাকতে ভালবাসেন। তারা এই চরম বিপদ দেখেও না দেখা করে রাখছেন।