সুস্থ সম্পর্কে সন্দেহ দূর করার সহজ কিছু উপায়

Some easy ways to Overcome Doubt
সুস্থ সম্পর্কে সন্দেহ দূর করার সহজ কিছু উপায় (Photo: Google)

আউটলাইন বাংলা ডিজিটাল ডেস্কঃ প্রত্যেক সুস্থ সম্পর্কের মূলমন্ত্র হল বিশ্বাস। যে কোনো সম্পর্কের ক্ষেত্রে বিশ্বাস থাকাটা খুবই জরুরী। তবে সম্পর্কে সন্দেহের সৃষ্টি হলে তৈরি হয় মানসিক সমস্যা ও ডিপ্রেশন। আর এতেই নষ্ট হয় সম্পর্ক। প্রত্যেক সম্পর্কেই চড়াই-উৎরাই থাকেই, সেক্ষেত্রে হাতে-হাত রেখে অতিক্রম করতে হবে জটিল সমস্যা গুলিকে। প্রত্যেক সুন্দর ও সুস্থ সম্পর্ককে টিকিয়ে রাখতে অবশ্যই যত্নশীল হতে হবে। তাই সঙ্গিনীর প্রতি মনে কোনো প্রশ্ন জাগলে অবশ্যই সুস্থ মস্তিষ্কে সমাধান সুত্র বের করুন। তাই জেনে রাখুন অন্যের প্রতি সন্দেহ দূর করার কিছু সহজ উপায়।

অকারণে দেষারোপ নয়ঃ কোনো প্রয়োজনীয় দ্রব্য খুজে পাচ্ছেন না, এমন পরিস্থিতিতে বাড়ির কাউকে দোষারোপ করবেন না। এতে সম্পর্কে ভাঙ্গন দেখা দিতে পারে। এবং অহেতুক কাউকে দোষ দেওয়াটাও খারাপ। তাই যে জিনিস খুজে পাচ্ছেন না, কোথায় রেখেছেন বা রাখতে পারেন সেটা নিয়ে ভাবুন। নিশ্চয় সমস্যার সমাধান হবে।

কাছের মানুষ স্মার্টফোনে ব্যস্তঃ সম্পর্ক একঘেয়েমি হয়ে উঠলে অবশ্যই তা কাটিয়ে ওঠা জরুরী। কিন্তু কিভাবে বুঝবেন। কাছের মানুষ বা আপনার সঙ্গিনীর সাথে সময় কাটানোর সময় সে স্মার্টফোনে ব্যস্ত থাকে? আপনার থেকে সোশ্যাল সাইটের প্রাধান্য বেশি মনে হচ্ছে। একঘেয়েমি সময় থেকে বেড়িয়ে আসতে গিয়ে মানসিক শান্তি না পেলে সম্পর্ক আরও বেশি কঠিন হয়ে পরে। তাই অযথা সন্দেহ না করে সরাসরি তাঁর সাথে কথা বলুন। দেখবেন নিমেষেই সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।

চিন্তিত বা উদাসীন মনোভাব: প্রত্যেক মানুষের মনে বিভিন্ন সময় ভিন্ন ভিন্ন চিন্তা, আবেগের বিচরণ ঘটে। আর সেগুলি আচরণ রুপে বহিঃপ্রকাশ ঘটে। তাই একজন মানুষ সর্বদাই আপনার সাথে একই আচরণ করবে, এটা ভাববেন না। তাই উত্তেজিত না হয়ে আপনার সঙ্গীর চিন্তা, অনুভূতি, আবেগ গুলির সাথে পরিচিত হন। দেখবেন সম্পর্কে কোনোরকম ভাঙ্গন দেখা দেবে না।

অন্যের সামনে খারাপ আচরণ: সঙ্গিনী কি বাড়িতে একরকম আবার অন্যের সামনে অন্যরকম, অর্থাৎ আপনার সাথে খারাপ আচরণ করছে। বা অল্প কিছুতেই রেগে যাচ্ছে, আপনার সঙ্গ স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করছে না। তাই রেগে না গিয়ে কি হয়েছে বা কেন এই ধরনের আচরণ, আগে জানার চেষ্টা করুন। তার সঙ্গে সরাসরি কথা বলুন। এবং আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করে নিন।

মতাদর্শের তফাৎঃ অনেক সময় দেখা যায় একে-অপরের সঙ্গে মতাদর্শ মিলছে না। এমন পরিস্থিতিতে পারস্পরিক একটা মধ্যপন্থা খুঁজে বের করা দরকার। এতে পরস্পরের মধ্যে অশান্তি বা অবিশ্বাস কোনওটাই থাকবে না।