Homeস্বাস্থ্যলাইফ স্টাইলআকর্ষণীয় ব্যক্তিত্ব গড়ে তুলতে খাবার টেবিলের যে আদব কায়দাগুলি জানা দরকার

আকর্ষণীয় ব্যক্তিত্ব গড়ে তুলতে খাবার টেবিলের যে আদব কায়দাগুলি জানা দরকার

আউটলাইন বাংলা ডিজিটাল ডেস্কঃ বর্তমান সময়ে আমরা একজন ব্যাক্তির কোন কোন চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য দেখে বুঝব যে ওই ব্যাক্তিটি খুব ভদ্র, মার্জিত বা খুব সুন্দর আদব-কায়দা জানে? এই প্রশ্নের উত্তরে অনেকেই বলবে, ব্যাক্তির বাচনভঙ্গি বা তাঁর চালচলন। তবে জেনে রাখা ভালো, কোনো ব্যাক্তির বাচনভঙ্গি বা তার চালচলন ছাড়াও ভদ্র, মার্জিত বোঝাতে সাহায্য করবে যে বিষয়টি সেটি হল, খাবার টেবিলের আদব-কায়দা (Table Manners)।

আমরা প্রত্যেকেই জানি দেশ, জাতি ও সংস্কৃতিভেদে খাওয়ার টেবিলের নিয়মগুলো একটু ভিন্নধর্মী(Table Manners and Dining Etiquette)। অর্থাৎ এক এক দেশে এক ধরনের খাওয়ার প্রচলন আছে। কোনো কোনো জায়গায় হাত দিয়ে খাওয়াটা ভদ্রতার পরিচয়, আবার কোথাও কোথাও চামচ বা কাঠির (চপস্টিক) দিয়ে খেতে হয়। তবে খাওয়ার টেবিলে এমন কিছু নিয়ম আছে যা সকলের ক্ষেত্রে সমান ভাবে প্রযোজ্য। এই নিয়ম অর্থাৎ আদব-কায়দাগুলো সকলের জানা দরকার। আসুন দেখে নেওয়া যাক খাবার টেবিলের বিশেষ কিছু আদব-কায়দা।

(১) আপ্যায়ককে অনুসরণঃ

কোনো বিশেষ অনুষ্ঠানে গিয়ে একজন অথিতির উচিৎ সর্বদাই আপ্যায়ককে অনুসরণ করা। কখনই নিজে থেকে চেয়ার টেনে নিয়ে বসতে যাবেন না, অপেক্ষা করুন। আপ্যায়ক আপনাকে কোন জায়গায় বসতে বলছেন আগে শুনুন, এবং তারপর বসুন। এবং বসার সময় অবশ্যই সোজা হয়ে বসতে হবে। খাবার টেবিল অনেকেই পায়ের ওপর পা তুলে বা কনুই উঠিয়ে বসে। কোনো অনুষ্ঠানে এই ধরনের ভঙ্গিমাতে একদম বসা উচিৎ না। মনে রাখতে হবে খাওয়ার সময় সকলের সাথে গতি রক্ষা করে চলতে হবে(Table Manners and Dining Etiquette)। এছাড়াও খাবার টেবিলে বিভিন্ন পদের জন্য আলাদা চামচ-প্লেট রাখা থাকে। তাই কোনটি কিভাবে ব্যবহার করবেন তা জানতে হবে। যদি ব্যবহারের পদ্ধতি না জানা থাকে তাহলে আপ্যায়ককে অনুসরন করুন।

(২) খাবার পরিবেশনঃ

সবসময় খাবার পরিবেশন করতে হবে আপ্যায়কের বামপাশ থেকে। বামপাশ থেকে খাবার নেয়া শেষ হবার পর ডানপাশে সরিয়ে রাখতে হবে। এবং খাবার সময় আপনি যে পদটি খেতে চাইছেন সেটি যদি হাতের নাগালের বাইরে থাকে অর্থাৎ কিছুটা দূরে থাকে তাহলে অবশ্যই পাত্রটির কাছে থাকা মানুষটিকে অনুরোধ করুন, ওই পদের পাত্রটি এগিয়ে দেওয়ার জন্য। এবং য খাওয়া বাকি আছে এমন পদগুলো বাম দিকে রেখে, খাওয়া শেষ হয়ে যাওয়া পদগুলো ডান দিকে রেখে দিতে হবে।

(৩) চিবোনোর নিয়মঃ

একটু ভালো ভাবে লক্ষ্য করলে দেখা যায় খাবার সময় কিছু কিছু ব্যাক্তি এমন ভাবে শব্দ করে খায়। যার ফলে পাশে থাকা ব্যাক্তির খাওয়ার ইচ্ছেটাই হারিয়ে ফেলেন। খাবার টেবিলে মুখে শব্দ করে খাওয়াটা একপ্রকার আদব-কায়দাহীনতার পরিচয় দেয়।

(৪) খাবার মুখে নিয়ে কথা না বলাঃ

বেশির ভাগ পরিবারে দেখা যায়, রাতে খাবার টেবিলে বসে পরিবারের লোকজন সারা দিন কি কি করল সব খোঁজ খবর নেয়। তবে মনে রাখতে হবে খাবার মুখে নিয়ে কথা না বলা। মুখের খাবার শেষ হলে কথা বলত পারেন।

(৫) খাবার টেবিলে ন্যাপকিনের ব্যবহারঃ

খাবার টেবিলে অবশ্যই ন্যাপকিন ব্যবহার করতে হবে। প্রথমত চেয়ারে বসে ন্যাপকিনটি কোলে বিছিয়ে নিতে হবে। এবং খেয়াল রাখতে হবে, যদি খাবার খাওয়ার সময় মুখের পাশে বা ঠোঁটে খাবার লেগে গেলে অবশ্যই খুব তাড়াতাড়ি ন্যাপকিন দিয়ে মুছে ফেলতে হবে। মনে রাখতে হবে খাওয়া সম্পন্ন হলে ন্যাপকিন টেবিলের যে জায়গায় বসবেন ঠিক তার বামদিকে রেখে দিতে হবে।

Table Manners and Dining Etiquette
Image Source: Google

(৬) ছুরি-চামচের ব্যবহারঃ

খাবার টেবিলে যে বিষয়টি সবার প্রথম জানা দরকার, তা হলো ছুরি-চামচের ব্যবহার।
ছুরি ও চামচ যোগ চিহ্নের মতো রাখলে, আপনি খাওয়ার জন্য প্রস্তুত এটা দেখে ওয়েটার খাবার সরবরাহ করবে।
ছুরি ও চামচ খাবার প্লেটের মাঝে কোনাকুনি করে রাখার অর্থ হল, আপনি খাওয়ার মাঝে একটু বিশ্রাম নিচ্ছেন।
ছুরি ও চামচ আড়াআড়িভাবে সমান্তরাল করে রাখলে অর্থ হল, খাবার খেয়ে আপনি খুব অনন্দিত।
ছুরি ও চামচ পাশাপাশি লম্বালম্বি করে রাখার অর্থ হল, আপনার খাওয়া সম্পন্ন হয়েছে, এরপর ওয়েটার আপনার প্লেটটি টেবিল থেকে নিয়ে যেতে পারে।
ছুরি-চামচ একটির ভেতর অপরটি সাথে গেঁথে রাখার অর্থ হোলো আপনার খওা শেষ, কিন্তু আপনি খাবার খেয়ে তৃপ্তি পাননি।

এই মুহূর্তে