Homeবিবিধজানেন কি একসময় হাসির মহামারি তে আক্রান্ত হয়েছিল তানজানিয়া

জানেন কি একসময় হাসির মহামারি তে আক্রান্ত হয়েছিল তানজানিয়া

Outlinebangla Desk: বিশ্বজুড়ে চলছে করোনা মহামারি। প্রতিদিন প্রায় লক্ষাধিক মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। তার সাথে অনেকে মারাও যাচ্ছেন। কিন্তু হাসি থেকে মহামারি সৃষ্টি হতে পারে, এইরকম শুনলে অবাক লাগে। অনেকেরেই এই ব্যাপার হয়তো অজানা।

কথায় আছে হাসলে শরীর, মন ভালো থাকে। কিন্তু এই হাসি মহামারির আকার ধারণ করেছিল। ১৯৬২ সালে পূর্ব আফ্রিকার দেশ তানজানিয়ার (আগে টানগানইকা নামে পরিচিত ছিল) কাশাশা গ্রাম প্রথম হাসির মহামারিতে আক্রান্ত হয়েছিল। এই মহামারি ‘টানগানইকা লাফটার এপিডেমিক’ নামে পরিচিত। এই অদ্ভুদ রোগে পাগলের মতো হাসতে হাসতে অজ্ঞান হয়ে পড়ত। এই রোগে ১৬ দিন পর্যন্ত রোগীকে ভোগাত।

১৯৬২ সালে কাশাশা গ্রামের একটি স্কুল থেকে এই রোগের সূত্রপাত হয়েছিল। একটি বোর্ডিং স্কুলে তিনটি মেয়ের মধ্যে অনিয়ন্ত্রিত হাসি লক্ষ্য করা যায়। তাঁদের থেকে বাকিদের মধ্যেও শীঘ্র তা ছড়িয়ে পড়ে। স্কুলের ১২ থেকে ১৮ বছরের মধ্যে প্রায় ৯৫ জন পড়ুয়া আক্রান্ত হয়। সংক্রমণ রুখতে স্কুল বন্ধ করে দেওয়া হয়। তানজানিয়ার মোট ১৪ টি স্কুলে ১০০০ জন আক্রান্ত হয়েছিল।

১৮ মাস ধরে এই রোগের প্রভাব ছিল। তবে পরে শুধু হাসি নয়। হাসির সাথে জ্ঞান হারানো,শ্বাসকষ্ট, হটাৎ হটাৎ কেঁদে ওঠা এইরকম নানা সমস্যাও দেখা দেওয়া শুরু করেছিল। যদিও এই মহামারির কারণে কারোর মৃত্যু হয়নি। এই রোগের কারণ হিসেবে বিজ্ঞানীরা বলেছেন, কোনও মানসিক অসুখ বা হতাশা থেকেই এই হাসির মহামারি।

এই মুহূর্তে