Homeস্বাস্থ্য সংক্রান্তTreadmill workout: ব্যায়াম করছেন ট্রেডমিলে? মাথায় রাখুন বিষয়গুলো

Treadmill workout: ব্যায়াম করছেন ট্রেডমিলে? মাথায় রাখুন বিষয়গুলো

Outlinebangla Digital Desk: ব্যস্তমুখর সময়ে আমরা অনেকেই নিজ স্বাস্থের প্রতি খেয়াল রাখতে পারি না। নিজেকে সুস্থ্য রাখতে ব্যস্ত জীবনেও কিছুটা সময় বের করে টুকটাক ডায়েটিং, হাঁটাহাঁটি প্রত্যেকেরই দরকার। মনে রাখবেন, নিয়মিত দৌড়ানো এবং ব্যায়াম করা ওষুধের চেয়ে বেশি উপকারী। অনেকেই শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমাতে বিভিন্ন ধরনের ডায়েট করেন। তবে অতিরিক্ত ওজন কমানোর সবচেয়ে সহজ ও কার্যকরী প্রন্থা হল দৌড়ানো। বিশেষজ্ঞদের মতে সারাদিনে মাত্র আধা ঘণ্টা দৌড়ালে স্বাস্থ্যগত উপকার মিলবে। যেমন- রক্তসঞ্চালন বৃদ্ধি, যা ফুসফুস ও হৃৎপিণ্ডের ক্ষয়পূরণ করবে, দূর করবে মানসিক চাপ এবং শরীরকে করবে আরও কর্মক্ষম। একাধিক কঠিন রোগের ওষুধ হিসেবে কাজ করে নিয়মিত দৌড়ানোর অভ্যাস। বর্তমান পরিস্থিতিতে যারা সময়ের অভাবে বা স্থানের অভাবে বাইরে ব্যায়াম ও দৌড়াতে পারে না। তাঁদের দৌড়ানোর (Running) জায়গা হল ট্রেডমিল (Treadmill workout)।

ট্রেডমিল (Treadmill workout) ব্যবহারের কিছু নিয়মকানুন:

হাঁটার শুরুতে ট্রেডমিলের বেল্টে উঠে দাঁড়ান। এরপর সুইচ অন করে স্বাভাবিক নিয়মে হাঁটা শুরু করুন। শুরুতেই জোরে দৌড়ানোর প্রয়োজন নেই। প্রথম ৫ থেকে ১০মিনিট হালকা হেঁটে গা গরম করে নিন। তারপর সময়টাকে ঠিক করে নিন। এরপর জোরে দৌড়ান। জোরে দৌড়ানোর পর গতি কমিয়ে নিয়ে ধীরে ধীরে হাঁটুন। মনে রাখবেন, যতক্ষণ দৌড়েছেন, তার তিন গুণ সময় পর্যন্ত কম গতিতে হাঁটুতে থাকবেন। এবং পুনরায় আবার জোরে দৌড়ানো শুরু করবেন। অভ্যস্ত হয়ে গেলে হাঁটার গতি ধীরে ধীরে বাড়াতে পারেন।

ট্রেডমিলের (Treadmill workout) সুবিধাঃ

(১) আপনি পছন্দমতো যে কোনও সময়ে ট্রেডমিল করতে পারেন। কারন এই যন্ত্রটি বাড়ির মধ্যেই থাকে।
(২) কতটা গতিতে দৌড়াচ্ছেন, এবং কতটা সময় ধরে দৌড়াচ্ছেন তা সহজেই বোঝা যায়।
(৩) ট্রেডমিল সমতল তাই ভয় থাকে না উচুঁ-নিচু পথের।

ট্রেডমিলের (Treadmill workout) সমস্যা:

(১) যন্ত্রের উপর দৌড়ানো খুব বেশি চ্যালেঞ্জের না।
(২) সর্বদা সমতল ভূমির মতো দৌড়ে চলা।
(৩) ট্রেডমিলে দৌড়ানোর ফলে শারীরিক উপকার মিললেও, চাপ পড়বে পকেটে।

আরও পড়ুনঃ Health Tips: কেন খাবেন পটল? জানুন গুণাগুণ

এই মুহূর্তে